মেনু নির্বাচন করুন

মৃধাপাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়

  • সংক্ষিপ্ত বর্ণনা
  • প্রতিষ্ঠাকাল
  • ইতিহাস
  • প্রধান শিক্ষক/ অধ্যক্ষ
  • অন্যান্য শিক্ষকদের তালিকা
  • ছাত্র-ছাত্রীর সংখ্যা (শ্রেণীভিত্তিক)
  • পাশের হার
  • বর্তমান পরিচালনা কমিটির তথ্য
  • বিগত ৫ বছরের সমাপনী/পাবলিক পরীক্ষার ফলাফল
  • শিক্ষাবৃত্ত তথ্যসমুহ
  • অর্জন
  • ভবিষৎ পরিকল্পনা
  • ফটোগ্যালারী
  • যোগাযোগ
  • মেধাবী ছাত্রবৃন্দ

জয়পুরহাট জেলার অন্তর্গত পাঁচবিবি উপজেলাধীন ৩নং আয়মারসুলপুর ইউনিয়নে ০৮নং ওয়ার্ডে মৃধাপাড়া গ্রামে মৃধাপাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়টি ৪০ শতক জমির উপর অবস্থিত। অত্র বিদদ্যুৎসাহী ও বিদ্যানুরাগী জনাব মোঃ নাজমুল হোসেন, জনাব মোঃ আবু সাদাত নূল কল্লোল, জনাব মোঃ তারিকুল ইসলাম, জনাব মোঃ জাহেরুল ইসলাম, জনাব মোঃ মঞ্জুরুল করীম, জনাব মোঃ আব্দুল হামিদ, জনাব মোঃ বায়েজীদ হোসেন ও মৃধাপাড়া গ্রামবাসীর সকলের প্রচেষ্টায় মৃধাপাড়া জামে মসজিদের সামনে ২০০৩ সালে একটি কোচিং সেন্টার স্থাপন করা হয়। সেই কোচিং সেন্টারের নাম ‘‘প্রতিফলন আদর্শ কোচিং সেন্টার’’-এর পরিচালক এবং শিক্ষক হিসেবে জনাব মোঃ নাজমসুল হোসেন দায়িত্ব পালন করেন। কোচিং সেন্টারের শিক্ষক সংখ্যা ৪ জন ছিল। ২০০৪ সালে কোচিং সেন্টারের ফলাফল সন্তোষজনক হওয়ায় অত্র এলাকায় সুনাম অর্জন করে। আমার শ্রদ্ধেয় স্যার আয়মারসুলপুর হাজি মনির উদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয়ের জনাব মোঃ মোফাজ্জল হোসেন, জনাব মোঃ আঃ মান্নান, জনাব মোঃ ফছির উদ্দিন, জনাব শ্রী ওয়াজেদ চন্দ্র ৬ষ্ঠ শ্রেণী ছাত্র-ছাত্রী ভর্তি করার জন্য আমাদের প্রতিফলন আদর্শ কোচিং সেন্টারে আসে তারপর তারা ৪ জন স্যার আমাদেরকে পরামর্শ দেয় যে মৃধাপাড়া গ্রামে একটি প্রাথমিক বিদ্যালয় তোমরা চালু কর। পরের দিন পাঁচবিবি উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসে জনাব মোঃ নাজমুল হোসেন এবং জনাব মোঃ হুমায়ুন কবির উপজেলা শিক্ষা অফিসের সঙ্গে প্রাথমিক বিদ্যালয় চালু করার নিয়ম কানুন পরামর্শ গ্রহণ করে। তারপর ২০০৫ সালে অত্র এলাকার সাধারণ সভা ডাকা হয়। সেই সভায় সবাই এক বাক্যে বলেন যে, প্রাথমিক বিদ্যালয় মৃধপাড়া গ্রামে খুবই প্রয়োজন। তারপর ৪ জন শিক্ষক-শিক্ষিকা ৪০ শতক জমি ক্রয় করে। শিক্ষকের তালিকা-

প্রধান শিক্ষক- জনাব মোঃ নাজমুল হোসেন

সহকারী শিক্ষিকা- মোছাঃ রাবেয়া সুলতানা

সহকারী শিক্ষিকা- মোছাঃ রাজিয়া সুলতানা

সহকারী শিক্ষিকা- মোছাঃ রিমি আকতার

এই চারজন শিক্ষক/শিক্ষিকার একান্ত প্রচেষ্টায় ২০০৫ ইং সালে খরিদকৃত ৪০ শতক জমির উপর একটি বাঁশের বেড়ার উপর টিন সেড কাঁচা গৃহ দিয়ে এর শুভ যাত্রারা সূচনা করা হয়। পরবর্তীতে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের জাতীয় সংসদ সদস্য ২০১১ সালে কিছু বরাদ্দ দেয় তা দিয়ে টিনের বেড়া ও সিমেন্টের খুটি দেওয়া হয়। ২০০৫ ইং সালে ৪ জন জমি দাতার দানকৃত ৪০ শতক জমির উপর ১টি কাঁচাঘর দিয়ে ১৫০ জন ছাত্র/ছাত্রী ও ৪ জন শিক্ষক-শিক্ষিকা দ্বারা পাঠ দান সম্পাদন সহ সকল কর্মকান্ড সুষ্ঠুভাবে পরিচালনার ক্ষেত্রে একটি দক্ষ ম্যানেজিং কমিটি বিশেষ ভূমিকা পালন করতে থাকেন। এই ভাবে ২০০৫ ইং সাল হইতে এই দীর্ঘ সময়ে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটি ক্রমান্বয়ে উন্নীতর দিকে অগ্রসর হতে থাকে। বর্তমানে দায়িত্ব প্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক তার দায়িত্ব ও কর্তব্য নিষ্ঠার সহিত পালন করার চেষ্টা করছেন।

ছবি নাম মোবাইল ইমেইল
মোঃ নাজমুল হোসেন ০১৭২২৭১১৫৩৬, ০১৯২৪৯৭০৮১০ nazmulhossain.mgps@gmail.com

ছবি নাম মোবাইল ইমেইল
মোছাঃ রাবেয়া সুলতানা ০১৭৮২৬০২৯০৪, ০১৯১৩২৫৮১৩৪ nazmulhossain.mgps@gmail.com
মোছাঃ রাজিয়া সুলতানা ০১৭৪৭৮২৯১২২ nazmulhossain.mgps@gmail.com
মোছাঃ রিমি আকতার ০১৭৩৩১০৮৭১৩, ০১৯১৩৮৪৫৬৮১ nazmulhossain.mgps@gmail.com

শ্রেণী

ছাত্র

ছাত্রী

মোট

১ম

৩০

২২

৫২

২য়

২২

০৮

৩০

৩য়

১৮

১৯

৩৭

৪র্থ

১০

১১

২১

৫ম

০৮

০৮

১৬

মোট =

৮৮

৬৮

১৫৬

১০০%

ক্রঃ নং

নাম

পদের নাম

মন্তব্য

মোঃ জাহেরুল ইসলাম

সভাপতি

 

মীর মোঃ শাহাদুল আলম

সহ-সভাপতি

 

মোঃ বায়েজীদ হোসেন

সদস্য

 

মোঃ আলমগীর হোসেন

সদস্য

 

মোছাঃ রুমা বেগম

সদস্য

 

মোছাঃ রিমু আকতার

সদস্য

 

মোছাঃ আফরোজা পারভীন

সদস্য

 

মোঃ আলতাফ হোসেন

সদস্য

 

কৃষ্ণ কমল মাহাতো

সদস্য

 

১০

মোছাঃ রাজিয়া সুলতানা

সদস্য

 

১১

মোঃ নাজমুল হোসেন

সদস্য-সচিব

 

পরীক্ষার সন

মোট পরীক্ষার্থীর সংখ্যা

উত্তীর্ণ পরীক্ষার্থীর সংখ্যা

পাশের হার

মন্তব্য

২০০৮

১০

১০

১০০%

 

২০০৯

১০

১০

১০০%

 

২০১০

১০০%

 

২০১১

১৩

১৩

১০০%

 

২০১২

১৭

১৭

১০০%

 

২০১০ সালে ২ জন বৃত্তি (১ ট্যালেন্টপুলে ও ১ জন সাধারণ বৃত্তি)।

২০১০ সালে ২ জন বৃত্তি, বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ টুর্ণামেন্ট- ২০১১ ইউনিয়ন রানার্স-আপ,  বঙ্গমাতা ফজিলাতুন্নেছা গোল্ডকাপ টর্ণামেন্ট- ২০১৩ ইউনিয়ন রানার্স-আপ।

এ বিদ্যালয় ভবনটি দ্বিতল ভবনে পরিণত হবে। বিদ্যালয় মাঠের সীমানা প্রাচীর দিয়ে ঘেরা এবং একটি মাত্র দরজা থাকবে। বিদ্যালয় মাঠে প্রাচীরের সঙ্গে ফুলের বাগান করা হবে। এক পার্শ্বে ছাত্র/ছাত্রীদের খেলার জন্য বিভিন্ন উপকরণ সাজানো থাকবে। প্রতিটি শ্রেণীতে প্রয়োজনীয় ফ্যান থাকবে যাতে করে ছাত্র-ছাত্রীরা গরমে কষ্ঠ না পায়। লেখাপড়ায় যেন বেশী মনোযোগী হয় এবং লেখাপড়ার মান যেন আরো ভালো হয়। বিদ্যালয় এর বারান্দা গ্রীল দিয়ে ঘিরে সেখানে টবে করে ফুলের গাছ লাগানো হবে।

উপরেল্লিখিত কাজগুলো সম্পূর্ণ করতে হলে প্রচুর অর্থের প্রয়োজন। অর্থের যোগান পেলে ভবিষ্যতে এ কাজগুলো সম্পন্ন করব বলে আশা রাখি।

উপজেলা শিক্ষা অফিস থেকে প্রায় ০৭ কিঃমিঃ দূরত্ব মৃধাপাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়টির যোগাযোগ ব্যবস্থা মোটামুটি ভালো।

প্রতি বছর মেধাবী ছাত্র-ছাত্রীদের বিদ্যালয়ের সভাপতি ও শিক্ষকগণ অনুষ্ঠানের মাধ্যমে কিছু উপহার প্রদান করেন।



Share with :

Facebook Twitter